‘আমরা পারিনি,তোমরা পারবে ঠিক’, বিশ্বকাপ ফাইনালের আগে দলকে বার্তা ঝুলনের

বিনোদন

নিজস্ব প্রতিনিধি: ফের একবার বিশ্বকাপ জয়ের হাতছানি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথমবার ফাইনালে টিম ইন্ডিয়া। মেলবোর্নে স্মৃতি মান্ধানাদের সামনে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়া। ২০১৭ সালে একদিনের বিশ্বকাপ অল্পের জন্য হাতছাড়া হয়েছিল মিতালি রাজ, ঝুলন গোস্বামীদের। তবে ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট অন্যমাত্রায় পৌঁছেছিল সেই সময়েই। টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নেওয়ায় চলতি বিশ্বকাপে নেই মিতালি রাজ, ঝুলন গোস্বামীরা। বাংলা হয়ে একদিনের টুর্নামেন্ট খেলতে এই মুহূর্তে হিমাচল প্রদেশে রয়েছেন ভারতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক ঝুলন। তার মধ্যেই মন পড়ে রয়েছে অস্ট্রেলিয়ায়। আরেকটা ম্যাচ জিততে পারলে প্রথমবার যে কোনও ফরম্যাটে বিশ্বকাপ জেতার কৃতিত্ব অর্জন করবেন ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটাররা। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নিজেরা যেটা পারেননি সেই সাফল্য স্মৃতি,পুনামদের মধ্যে দিয়ে দেখতে চান ঝুলন গোস্বামী। বিশ্বকাপ ফাইনালের আগে নিউজ18 বাংলাকে ফোনে সাক্ষাৎকার দিলেন ঝুলন গোস্বামী।

বিশ্বকাপ ফাইনালে ফেভারিট কে? ঝুলন জানান, “ফাইনাল ম্যাচ সবসময় ৫০-৫০ হয়। কোনও দল এগিয়ে থেকে শুরু করে না। গুরুত্বপূর্ণ সময় যে মানসিক চাপ সামলাতে পারবে সেই চ্যাম্পিয়ন হবে।”

২০১৭ সালে তীরে এসে তরী ডুবে ছিল। ২০২০ তে কি সেই স্বপ্নপূরণ হবে? ঝুলনের মতে, “২০১৭সালে আমরা ফাইনাল আধিপত্য বজায় রেখেও হেরে গিয়েছিলাম। গুরুত্বপূর্ণ সময় কয়েকটা উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যাই। আশা করব এই বছর আমাদের মেয়েরাই চ্যাম্পিয়ন হবে। পুরো প্রতিযোগিতায় ভারতীয় দল যেভাবে খেলেছে তাতে চ্যাম্পিয়ন হওয়া উচিত।”
২০১৭ বিশ্বকাপ ফাইনালে রানার্স হওয়া দলের কয়েকজন এই দলে রয়েছেন। সেই ফাইনালের অভিজ্ঞতা কী এবার কাজে লাগবে? ঝুলনের স্পষ্ট উত্তর, ‘‘অভিজ্ঞতা সব সময় কাজে লাগে। তবে দুটো বিশ্বকাপের ফরম্যাট আলাদা। সারা প্রতিযোগিতায় দলটা ইউনিট হিসেবে পারফর্ম করেছে। ফাইনালের আগে যখন কোনও টিম দলগতভাবে পারফর্ম করেক তখন তাঁরা মানসিক ভাবে অনেকটা এগিয়ে থাকে৷’’

১৬ বছর বয়সী শেফালী ভার্মা কী এক্স ফ্যাক্টর? ঝুলনের দাবি, “শেফালী খুব ভালো পারফর্ম করছে। তবে শুধুমাত্র একজন ভারতীয় দলের এক্স ফ্যাক্টর এটা বিশ্বাস করি না। একজন ওপেনের রান করতে পারলে মিডিল অর্ডার চাপমুক্ত থাকে। সেই দিক থেকে শেফালীর উপস্থিতি ভারতীয় দলকে অনেকটা ভারসাম্য যুগিয়েছে।”

বিশ্বকাপ ফাইনালে ভারতীয় দলের কোনও বিষয়গুলো মাথায় রেখে নামা উচিত? ঝুলনের পরামর্শ, “খোলা মনে ক্রিকেট খেলো। দল একটা মোমেন্টাম বজায় রেখে ফাইনালে উঠেছে। ফাইনালে সেটা ধরে রাখতে হবে। সবাই পারফর্ম করতে পারলেই অস্ট্রেলিয়াকে হারানো সম্ভব। চলতি বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচেই অস্ট্রেলিয়া ভারতের কাছে হেরেছে। তাই অস্ট্রেলিয়া মানসিকভাবে একটু পিছিয়ে থেকেই ফাইনালে নামবে।”

প্রস্তুতি টুর্নামেন্টের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে হারতে হয়েছিল ভারতকে। ফাইনালে অস্ট্রেলিয়া কী বেশি ভয়ঙ্কর? ঝুলন বলেন, “প্রস্তুতি টুর্নামেন্টের ফাইনালে হারের প্রভাব বিশ্বকাপ ফাইনালে পড়বে না। ভারতীয় দল এক মাসের বেশি সময় অস্ট্রেলিয়ায় রয়েছে। আমি আগেই বলেছিলাম দল ধীরে ধীরে সাফল্যের শীর্ষে উঠবে। ভারতীয় ক্রিকেটাররা সেটাই করে দেখিয়েছে।”

সেমিফাইনালে এক বল না খেলে ফাইনালে উঠেছে ভারত। শেষচারের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলা হলো না বলে কি নকআউটে নিজেদের বুঝে নিতে সমস্যা হল ভারতের? ঝুলনের দাবি, “টুর্নামেন্টের যেটা নিয়ম সেটা মানতেই হবে। ভারতীয় দলকে সমালোচনা করাটা ভুল। আইসিসি ভবিষ্যতে রিজার্ভ ডে রাখা নিয়ে নিশ্চয়ই ভাবনা চিন্তা করবে। নকআউট ম্যাচ না খেললেও এই দলের বেশির ভাগই ক্রিকেটার জানেন এই পর্যায়ের ম্যাচের চাপ নিতে।

ভারতীয় দল কোন বার্তা দিতে চান? আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ করেছেন? ঝুলন বলেন, “আগেও বলেছি একটাই বার্তা। চাপ না নিয়ে খোলা মনে ক্রিকেট খেলো। ফাইনাল উপভোগ কর। হোয়াটসঅ্যাপে সবার সঙ্গে কথা হয়। আমার শুভেচ্ছা সব সময় রয়েছে। দল চ্যাম্পিয়ন হলে একসঙ্গে সেলিব্রেশন করা যাবে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *