জগন্নাথ দেবের ভোগ তৈরি করতে চান?কিন্তু জানেন কি জগন্নাথ দেবের ভোগ রান্না হয় কীভাবে বা কি কি থাকে ৫৬ ভোগে…

লাইফস্টাইল

রিমি রায়ঃ জগন্নাথ দেবের রথের চাকা নাই বা ঘুরল তা বলে কি ভোগও জুটবে না তার কপালে, তা কি কখনও হয়? তা একেবারেই কাম্য নয় জগন্নাথ দেবের ভোগের জন্য চড়বে হাড়ি অবশ্যই। কিন্তু জানেন কি জগন্নাথ দেবের ৫৬ ভোগে কি কি থাকে কিংবা কেমন হয় তার রান্নার পদ্ধতি?
এখনও পর্যন্ত কোনরকম আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার না করে পুরাতন পদ্ধতিতেই চলে জগন্নাথ দেবের রান্না। এমনকি রান্নাঘরে ব্যবহার হয় না কোন বিদ্যুৎ, ব্যবহার হয় না কোন যন্ত্রও । উন্মুক্ত কাঠের আগুণের উপর তেলের ল্যম্প বা বাতি ঝুলিয়ে রাখা হয় আর তার নীচেই সেবকরা এসে রান্না করেন। শুনলে অবাক হবেন মাত্র একদিনের প্রস্তুতিতে তৈরি হয় ১০,০০০ জনের প্রসাদ। আরও আশ্চর্য হবেন এই প্রসাদ ১০,০০০ জনের জন্য রান্না হলেও ২ লাখ বা তার বেশী দর্শনার্থী আসলেও কেউ শূন্য হাতে ফেরেন না, এমনকি বাড়তিও হয় না এই প্রসাদ।
রান্নাঘরে রয়েছে ৭২৫ টি উনুন এবং এক একটি উনুনে ৭টি করে মাটির পাত্র বসানো হয় একটির উপর একটি আর প্রত্যেকটি পাত্রেই সম্পূর্ণভাবে রান্না হয়। আর রান্নাঘরের দায়িত্বে রয়েছেন ১০০০ জন সেবক। এখানে ব্যবহিত হয় না কোন পুরানো পাত্র, প্রতিদিন রান্না হয় নতুন পাত্রে। রান্নার জল আসে রান্নাঘরের ভেতর দিয়ে প্রভাহিত হওয়া গঙ্গা এবং সরস্বতী নদী থেকে যা বাইরে থেকে দেখা যায় না।
এবার দেখা যাক জগন্নাথ দেবের ৫৬ ভোগে কি কি থাকে। জগন্নাথ দেবের ৫৬ ভোগে প্রথমেই থাকে ঊকড়া অর্থাৎ মুরি এরপর যথাক্রমে নারকেল নাড়ু, খোয়াক্ষীর, দই, টুকরো কলা, সুগন্ধি ভাত, খিচুরি, কেক, বড় কেক, পূলি পিঠে, মিষ্টি কেক, প্যান কেক, নারকেল কেক, আদা চাটনি, শাঁক ভাজা, লঙ্কার লাড্ডু, করলা ভাজা, ছোট্ট পিঠে, দুধের মিষ্টি, ভাতের মিষ্টি, বোঁদে, পান্তা ভাত, দুধ ভাত, বিশেষ মিষ্টি, পাত মনোহর মিষ্টি, তাকুয়া মিষ্টি, ভাত পিঠে, নিমকি, ভাত ও শব্জী, কাকারা মিষ্টি, নোনতা বিস্কুট, মিষ্টি লুচি, বিড়ি পিঠে, চাড়াই নাড়া মিষ্টি, খাস্তা পুরী, কাঁদালি বড়া, মিষ্টি চাটনি, রাইস কেক, পদ্ম পিঠে, পিঠে, চালের মিষ্টি, দই ভাত, বড় আড়ীষা, তৃপুরী, সুগার ক্যান্ডি,সুজি ক্ষীর, মূগাশীজা, মনোহরা মিষ্টি, মাগাজা লাড্ডু, পানা, অন্ন, ঘি ভাত, ডাল, সবজি, লাবরা, নারকেলের দুধ দিয়ে মাখা ভাত। তবে জগন্নাথদেব খেতে এবং খাওয়াতে ভালবাসেন। প্রতিদিন এত আয়োজন সব বিতাড়িত হয় গরীব এবং ভক্তদের মধ্যে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *