বিমানের মতো এবার ইউজার চার্জ বসবে ট্রেনেও

খবর ব্যবসা

রিমি রায়: অনেকদিন ধরেই গুঞ্জন ভারতীয় রেলের বেসরকারিকরন নিয়ে। তার জন্য রেল ঢেলে সাজানোও হচ্ছে। লকডাউনকে কাজে লাগিয়ে স্টেশনগুলিতে করা হচ্ছে রিডেভালপ। ভারতীয় রেল ব্যবস্থা পুরোপুরি বদল হতে চলেছে তা বলাই যায়।
নয়া প্রযুক্তি ও আসছে রেলে। সেইজন্য গেটের কড়ি খরচা করে যাত্রীদের দিতে হবে টাকা। এমনই ইঙ্গিত দিলেন নীতি আয়োগ এর সিইও অমিতাভ কান্ত।তিনি জানিয়েছেন খুব শীঘ্রই ইউজার ফি নিতে চলেছে রেলওয়ে এই প্রথম এরকম কোন চার্জ বসল ভারতীয় রেলে।
বিমানে অবশ্য এই ধরনের ব্যবস্থা আগেই ছিল। বিমান যাত্রীদের ইউজার ডেভেলপমেন্ট ফি দিতে হত বিভিন্ন বিমান বন্দরে।ভিন্ন পরিমাণে ইউজার ফি চোকাতে হত। আর এবার ৭০০ থেকে ১০০০টি স্টেশনে ইউজার ফি নিতে চলেছে রেল।তবে যাত্রীদের আশ্বস্ত করে রেল বোর্ডের সিইও ভিকে যাদব জানার খুব অল্প টাকায় দিতে হবে ইউজার ফি হিসাবে। এই সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি যে সব স্টেশনের দেওয়া হবে সেই স্টেশন গুলির সাঁটানো হবে বিজ্ঞপ্তি।বিশ্বমানের পরিষেবা দিতে গেলে রেলের এই টাকাটা লাগবে এমনটাই দাবি তাঁদের।সমস্ত প্রধান রেলওয়ে স্টেশনকে আপডেটেড করতে টাকা দরকার হবে বলে জানান রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান।
রেলের তরফ থেকে আরও জানানো হয় সব স্টেশনের ইউজার চার্জ থাকবে না। ১০ থেকে ১৫ শতাংশ স্টেশনে যেখানে আগামী পাঁচ বছরে আরও ভিড় বাড়বে সেখানেই শুধুমাত্র নেওয়া হবে ইউজারচার্জ রেলে বেসরকারিকরন আনতে বহুদিন ধরেই চেষ্টা করেছিল কেন্দ্র।সেই ভাবনাই এবার বাস্তবায়ন হতে চলেছে। প্রাথমিকভাবে পঞ্চাশটি রেলস্টেশনে রিডেভালপ করা হচ্ছে। স্টেশনের জমি লিজ দেওয়া হচ্ছে বাণিজ্যিক কারণে। রিডেভেলপড স্টেশনগুলিকে বলা হবে রেলোপলিস।
মনে করা হচ্ছে জাপানের মত ভারত রেল এর মাধ্যমে একটা আর্থিক অগ্রগতির স্বপ্ন দেখছে।নীতি আয়োগের অমিতাভ বলেন যে ভবিষ্যতে আর্থিক বৃদ্ধির ১ থেকে ২ শতাংশ হয়তো আনবে রেল। বেসরকারি ভাবে ট্রেন চালানো কাজ শুরু করে দিয়েছে রেল। এতে দেশের সবচেয়ে বড় ম্যানুফ্যাকচারিংয়ে প্রভাব পড়বে। এছাড়াও বিভিন্ন দিকে লাভ হবে বলে আশা রেল কর্তৃপক্ষের।