হস্টেলের শৌচাগারে জন্ম, সদ্যোজাতকে বালতির মধ্যে ফেলে দিল ছাত্রী!

খবর রাজনীতি-সামাজিক

নিজস্ব প্রতিনিধি: কর্ণ অথবা কুন্তী, এই মা-ছেলের গল্প মহাভারতেই থেমে যায়নি। কুমারী মা, পিতৃ পরিচয় এবং এসকল সামাজিক জটিলতার ফাঁদে জলে ভেসে না গেলেও আস্তাকুঁড়ে বা পথের ধারে ঠাঁই হয় হাজারো কর্ণের। সোমবারই মহারাষ্ট্রে এমনই এক মর্মান্তিক ঘটনায় ফের এই বিষয়টিই সামনে এসেছে। মহারাষ্ট্রের ধুলে জেলায় ১৮ বছরের এক স্নাতক ছাত্রী একটি হস্টেলের শৌচাগারের ভিতরে এক সন্তানের জন্ম দেয়। পুলিশ জানিয়েছে, সন্তানের জন্ম দিয়ে সেখানেই একটি বালতিতে সে ফেলে দেয় সদ্যোজাতকে। ২৯ ফেব্রুয়ারি ধুলে জেলার সাকরি শহরে সাবিত্রীবাঈ ফুলে আদিবাসী ছাত্রীবাসের শৌচাগারে এই ঘটনাটি ঘটে।
পুলিশ জানায়, মেয়েটি একটি বালতিতে শিশুটিকে রেখে যায়। হস্টেলের ওয়ার্ডেন শৌচাগারে শিশুর কান্নার শব্দ শুনতে পান। তিনিই ওই বালতির ভিতরে শিশুটিকে প্রথম দেখতে পেয়েছিলেন।

তদন্ত চলাকালীন কোনও পড়ুয়াই এই সন্তানের দাবি জানাতে এগিয়ে আসেনি। “তখন সন্দেহ দানা বাঁধে এক ছাত্রীকে ঘিরে। ওই ছাত্রীকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। পরীক্ষায় ধরা পড়ে যে শিশুটি ওই ছাত্রীরই,” জানান সাকরি থানার পুলিশ ইন্সপেক্টর দেবীদাস দামনে।

শিশু ও ছাত্রী দু’জনকেই আরও চিকিৎসার জন্য ধুলের সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এই ঘটনায় আরও তদন্ত চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *