Thursday , 28 , Jan-2021

Top Stories
  1. ‘‌আগে জোর করে বুথে ঢুকে যেতাম, এবার হবে না’‌, 'আক্ষেপ' তৃণমূল নেতার
  2. খাস কলকাতায় মন্ত্রীর বাড়ি লক্ষ্য করে বোমা, ভোটের আগে বাড়ছে উত্তাপ
  3. খোলা তরবারি নিয়ে, খালিস্তানি পতাকা উড়িয়ে দাঙ্গায় মদত কৃষক নেতা, বামপন্থীদের
  4. ৩০ জানুয়ারি অমিতের হাত ধরে বিজেপিতে যাচ্ছেন ১৪ তৃণমূল মন্ত্রী, বিধায়ক
  5. ‘‌পদ্মশ্রী’ পেলেন নারায়ণ দেবনাথ, মৌমা দাস–সহ বাংলার সাত, বাংলাদেশের ২ কৃতী
  6. ২১-র ভোটে বাড়তে পারে কেন্দ্রীয় বাহিনী, আলোচনায় নির্বাচন কমিশন
  7. ভিক্টোরিয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর জয় বাংলা স্লোগানে ক্ষুব্ধ বাংলাদেশ
  8. কারা দিল স্লোগান, প্রশ্ন নিরাপত্তা নিয়েও
  9. প্রধানমন্ত্রীর সামনেই তীব্র প্রতিবাদ মুখ্যমন্ত্রী মমতার
  10. ভ্যাকসিন পেয়ে টুইটে হনুমানের ছবি পোস্ট করে মোদীকে কৃতজ্ঞতা ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের
inner-page-banner

বিহারে সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনে আসাদউদ্দিন ওয়াইসি'র সর্বভারতীয় মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসালিমীন (এআইআইএমআইএম) বা মিম পাঁচজন বিধায়ককে পেয়েছে। বিহার থেকে, ওয়েসি তার সাফল্য পশ্চিমবঙ্গেও তার দলের প্রত্যাশা বাড়িয়েছে। গত বছর অক্টোবর মাসে কিশনগঞ্জ বিধানসভা উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মিম। কিন্তু বিহারের সীমাঞ্চল এলাকায় অনেক আগে থেকেই সংগঠন বাড়িয়েছে ওয়াইসির পার্টি। এবার তাদের নজর পশ্চিমবঙ্গের দিকে। 
বিহারের মতো ওয়েসি বেশ কিছুদিন ধরে পশ্চিমবঙ্গেও কাজ করছেন। ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনের পরে মিম এর 'বেঙ্গল প্ল্যান' আঁকা হয়েছিল। বেঙ্গল ইউনিট গত বছর ২৫ টিরও বেশি সমাবেশ করেছে; এর মধ্যে পাঁচটি সমাবেশে এক লক্ষেরও বেশি জনতা এসেছেন বলে মিমের দাবি। আরও দাবি, এখন বাংলার প্রায় সব জেলায় এটির একটি পার্টি ইউনিট রয়েছে। দিনাজপুর, মালদা, হাওড়া, কোচবিহার, বীরভূম, আসানসোল, নদিয়া এবং কলকাতার মতো জেলাগুলির উপরে মূল দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখা হয়েছে। ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যার ২৭ শতাংশ মুসলিম রয়েছে।
পশ্চিমবঙ্গের তাদের সংখ্যালঘু ভোটব্যাংক'কে সুরক্ষিত রাখতে বদ্ধপরিকর তৃণমূল কংগ্রেস। সেই কারণেই আসাদুদ্দিন ওয়াইসি'র মিম-কে দেখে অস্বস্তিতে তৃণমূল , মনে করছে রাজনৈতিক মহল। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা রাজ্যে আগামীদিনে এন আর সি-কে মেরুকরণের বার্তাবাহক হিসাবে ধরছেন। সেই কারণেই, বিজেপি এবং তৃণমূল (যথাক্রমে এন আর সি-এর সমর্থক এবং বিরোধী) ভোট ভাগাভাগি করে নেবে, সেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে তৃতীয় শক্তি হিসাবে বামে-কংগ্রেসের ভোট ব্যাংকে থাবা বসতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপিকে আটকাতে হলে, তৃণমূল-ই একমাত্র বিকল্প ভোটারদের মনে করিয়ে দিতে চাইছেন মমতা। সেক্ষেত্রে, বাংলার মুসলমান সমাজ, যা দীর্ঘদিন ধরেই বাম এবং কংগ্রেসকে ভোট দিয়ে এসেছিল, তারা তৃণমূলের দিকে ঘুরেছে তা যেমন সত্য, তেমনই, মুসলিম রাজনৈতিক দল এআইএমএইএম এর দিকে ঘুরে যেতে পারে সেই আশঙ্কাও রয়েছে। 
সেক্ষেত্রে, আসাদুদ্দিন ওয়াইসির মত নেতা যদি মমতার ভোটব্যাংকে থাবা বসায় তবে তা সব থেকে আনন্দের বিষয় হবে বিজেপির কাছে। সেক্ষেত্রে, একজন মুসলিম নেতা এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে পছন্দ করার মুহূর্ত আসবে।  বাংলার মুসলমান সমাজের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুধ্যে ক্ষোভ নেই এমন নয়। সেক্ষেত্রে, মুসলিমদের ক্ষোভের আগুনে ঘি ঢেলে উপস্থিত হয়েছেন আসাদুদ্দিন।

You can share this post!

কখন কোন নেতা দল ছাড়বেন কেউ বলতে পারছেন না, ছন্নছাড়া অবস্থায় ভোটে নামছে তৃণমূল

মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা একইসঙ্গে! নয়া সুপারিশ শিক্ষা দফতরে

author

Sunday Times Kolkata

By Admin

0 Comments

Leave Comments