ভারতে আটকেপড়া বাংলাদেশিদের ঘরে ফেরা অনিশ্চিত

বাংলাদেশ
ওমর আলী, বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা: ভারতে চিকিৎসা নিতে গিয়ে লকডাউনে আটকেপড়া বাংলাদেশিদের দেশে ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। করোনা সংক্রমণ রোধে বাংলাদেশে ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা বর্ধিত করার ফলে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে বাংলাদেশে সাধারণ ছুটি ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এর সঙ্গে সঙ্গতি রেখে সব ধরনের আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।
রবিবার বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে আদেশ জারি করেছে। এতে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে যাত্রী পরিবহনের (শিডিউল পেসেঞ্জার ফ্লাইট) ক্ষেত্রে উড়োজাহাজ চলাচল নিষেধাজ্ঞা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়।
এ নিষেধাজ্ঞা বাহরাইন, ভুটান, হংকং, ভারত, কুয়েত, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, ওমান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলঙ্কা, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, সংযুক্ত আরব আমিরাত, যুক্তরাজ্য (মোট ১৬টি) রুটের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে। ফলে এসব দেশ থেকে কেউ বাংলাদেশে ফিরতে পারবেন না।
এদিকে লকডাউনের কারণে ভারতের বিভিন্ন শহরে আটকে পড়েছেন কয়েক হাজার প্রবাসী। ভারতে বাংলাদেশ দূতাবাসের হটলাইনে নিবন্ধিত আটকেপড়াদের সংখ্যা ২৫শ’র বেশি। এরমধ্যে চিকিৎসা নিতে গিয়ে আটকেপড়াদের সংখ্যা পাঁচ শতাধিক।
কোলকাতার টাটা মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসা নিতে গিয়ে আটকা পড়েছেন সত্তরোর্ধ চাটগাঁর মোহাম্মদ হোসেন। ক্যান্সার চিকিৎসা নিতে তিনি কোলকাতায় যান। চিকিৎসা নিয়ে তিনি এখন পুরোপুরি সুস্থ।
কোলকাতায় করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় সানডে টাইমসের কাছে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। মিঃ হোসেন বলেন, ভারতে লকডাউনের মেয়াদ বর্ধিত করা হতে পারে। তিনি বিশেষ ব্যবস্থায় বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে এম্বুলেন্সে করে দেশে পাঠাতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছেন।
মায়ের চিকিৎসার জন্য দিল্লিতে গিয়ে আটকে পড়েছেন সিলেটের তারেক আহমেদ। লকডাউনের কারণে হোটেল থেকেও বের হতে পারেন না। হাই কমিশনের হটলাইনে নিবন্ধন করেছেন। কিন্তু কোনো সাহায্য পাননি। ফ্লাইট বন্ধ থাকায় বাংলাদেশে ফিরতে পারছেন না। সেখানে আরও শতাধিক বাংলাদেশি আটকে আছেন। বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করে তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তারেক। আটকেপড়া বাংলাদেশিদের দ্রুত দেশে ফেরাতে চান কূটনীতিক উদ্যোগ।
এ ব্যাপারে পররাষ্ট্র দফতরের একজন কর্মকর্তা বলেন, আটকেপড়া বাংলাদেশিদেরকে ফিরিয়ে নিতে কাজ করছে বাংলাদেশ হাইকমিশন। হটলাইনের মাধ্যমে আটকেপড়াদের তালিকাভূক্তির কাজ চলছে। লকডাউনের পর তাদেরকে ফিরিয়ে নেয়া হবে বলে সানডে টাইমসকে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *